প্রচ্ছদ দৈনিক খবর

‘স্ত্রীকে পদ্মা সেতুর টোলের হিসাব শিখিয়েছিলাম, নির্যাতন করিনি’

7

পদ্মা সেতুর টোলের হিসাব না পারায় স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করে মো. আলমগীর তালুকদার বলেছেন, তিলকে তাল করে কাবিননামার টাকা আদায় করতে এসব মিথ্যা অভিযোগ সাজানোর অপচেষ্টা হচ্ছে। আমি স্ত্রীকে পদ্মা সেতুর টোলের হিসাব শিখিয়েছিলাম, নির্যাতন করিনি। স্কেলের মতো বাঁশের একটি কাঠি দিয়ে হাতে দুই-একটা বাড়ি মেরেছিলাম গুণ না পারায়। অপমানে এখন আত্মহত্যা করতে ইচ্ছে হচ্ছে।’মঙ্গলবার (৫ জুলাই) দুপুরে গণমাধ্যমে এসব কথা বলেন রাউজানের বাগোয়ান ইউনিয়নের মো. আলমগীর তালুকদার। জানা

গেছে, গত মঙ্গলবার (২৮ জুন) সকাল ১০টায় রাউজান উপজেলার বাগোয়ান ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডে যৌতুকের টাকার জন্য তাওহিদুন্নেসাকে মারধর করেন তার স্বামী আলমগীর তালুকদার। তার আর্তচিৎকারে এলাকার লোকজন গিয়ে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। এর মধ্যে থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আরও পড়ুন…মিটিংয়ে অসুস্থ, হাসপাতালে নেওয়ার পথে উপজেলা চেয়ারম্যানের মৃত্যু নির্যাতনের শিকার তাওহিদুন্নেসার বাবা মোস্তাক আহমেদ বলেন, যৌতুকের টাকার জন্য আমার মেয়েকে চরম নির্যাতন করা হয়েছে। কী করব কিছুই বুঝতে পারছি না।অভিযুক্ত স্বামী মো. আলমগীর তালুকদার জানিয়েছেন, যৌতুকের জন্য আমার স্ত্রীকে মারধর করিনি। মূলত, বিয়ের সময় আমার স্ত্রী এইচএসসি পাস বলে জানিয়েছিল আমার শ্বশুরবাড়ি থেকে।

কৌতূহলবশত স্ত্রী তাওহিদুন্নেসাকে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের পর প্রথম দিনে আদায়কৃত টাকার উপর ভিত্তি করে পুরো বছর আয় কত হবে তা বের করতে বলেছিলাম। কিন্তু সে কোনো হিসাব করতে পারেনি। যোগ-বিয়োগ, গুণ-ভাগ কিছুই জানে না। মূলত, পদ্মা সেতুর টোল আদায়ের বাৎসরিক হিসাব বের করতে না পারায় মারধর করেছি।রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল হারুন বলেন, স্বামী কর্তৃক স্ত্রী নির্যাতনের বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি।

এরপরও আমি খোঁজ নিয়ে পরে জানাচ্ছি।উল্লেখ্য, ৪ বছর আগে রাউজান উপজেলায় বাগোয়ান ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড উত্তর গশ্চির প্রয়াত সালেহ আহম্মদ তালুকদারের ছেলে মো. আলমগীর তালুকদারের সঙ্গে বাশঁখালী উপজেলার উত্তর জলদী গ্রামের মোস্তাক আহম্মদের মেয়ে তাওহিদুন্নেসার বিয়ে হয়। তাদের এক ছেলে সন্তান রয়েছে।