যে কোন ধরনের ত্বকের সুরক্ষায় দারুন কার্যকরী বরফের এই ১২ টি ফেস প্যাক

যে কোন ধরনের ত্বকের সুরক্ষায় দারুন কার্যকরী বরফের এই ১২ টি ফেস প্যাক
পড়া যাবে: 4 মিনিটে

বরফের নানা রকম ব্যাবহার শুনেছেন কিন্তু বরফের ফেস প্যাক এর কথা কি শুনেছেন। শিরোনাম শুনেই অবাক হচ্ছেন? তা হবারই কথা। তবে আজকের লেখা পড়ার শেষে বরফের প্রতি ভালোবাসা আরেক ধাপ বেড়ে যাবে তা হলফ করে বলতে পারি।

বরফের ফেস প্যাক বা আইস কিউব ফেস প্যাক ত্বকের যত্ন নিতে দারুন কাজ করে। বরফ ব্লাড সার্কুলেশন ঠিক রাখতে সাহায্য করে, যার ফলে আমাদের স্কিন বা ত্বক স্বাভাবিক জেল্লা বজায় রাখে সবসময়।
মুখে বরফ লাগানো কি উচিত?

আজ্ঞে হ্যাঁ। একদম উচিত। যাদের মনে প্রশ্ন জাগছে যে, মুখে বরফ লাগালে কোন ক্ষতি হবে না তো? তাহলে তাদের বলছি আপনারা নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন এই বিষয়ে। এর কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই। বরফের ফেস প্যাক লাগানোর আগে জেনে নিন এটি ব্যবহার করা ত্বকের জন্য কেন ভালো।বরফ লাগানোর উপকারিতা কি কি আছে।

রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে দেয় ফলে ত্বকে অক্সিজেনের যোগান সঠিক মাত্রায় হয়। যা ত্বককে ফ্রেস বা সতেজ রাখে ২৪ ঘণ্টা।
স্কিনের উপরের মরা কোষ দূর করে। বন্ধ থাকা পোর্স খুলে দেয় ফলে স্কিনের ডালনেস দূর হয়।
ব্রণ বা গরম ফোঁড়া হতে দেয় না। হলে তা দ্রুত দূর করে।

মেকাপের আগে বরফ মুখে ঘষে নিলে বা বরফের ফেস প্যাক ব্যবহার করলে মেকাপের বেস খুব ভালো ভাবে মুখে বসে।
ত্বকের যাবতীয় যত্ন নিতে সাহায্য করে।

ঠিক কিভাবে মুখে বরফ লাগাবেন

প্রতিটি জিনিস ব্যবহারের সঠিক কিছু নিয়ম থাকে। তা মেনে ব্যবহার করলে তবেই তা কার্যকরী হয়। বরফ বা আইস কিউবের ফেস প্যাক সঠিক ভাবে লাগালে তবেই তা আপনাদের উপকারে আসবে।
সরাসরি মুখে কখন বরফ বা আইস কিউব লাগাবেন না।

পরিষ্কার পাতলা সুতির কাপড়ে মুড়ে তবে তা ব্যবহার করবেন।
বরফের সাথে যদি কিছু সামগ্রী মেশানো থাকে, তবে তা চোখের থেকে একটু দূরে রাখবেন।
বরফ শরীরের যেখানেই লাগান না কেন একঘণ্টার বেশি তা ব্যবহার করবেন না।

বরফের ১২টি ফেস প্যাক

আজ যে ১২টি বরফের ফেস প্যাকের সম্পর্কে জানাবো, প্রতিটি ফেস প্যাক স্কিনের যত্ন নিতে নানা ভাবে সাহায্য করে। ব্রণ দূর করা থেকে সান ট্যান সরাতে এদের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। চলুন দেখে নেওয়া যাক।

১. গ্রিন টি আইস ফেস প্যাক

গ্রিন টি আইস প্যাক অ্যান্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। স্কিনের থেকে টক্সিন দূর করে এই আইস কিউব। স্কিন গ্লো করতে সাহায্য করে ও ফ্রেস রাখে।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

গ্রিন টি বানিয়ে নিন নর্মাল যেমন বানায়। এবার তা ঠাণ্ডা করার পর আইস ট্রে’তে ঢেলে ফ্রিজে রেখে দিন। ৪ থেকে ৫ ঘণ্টা মত ফ্রিজে রাখুন। তারপর এটি ব্যবহার করুন যে ভাবে আইস কিউব মুখে লাগায় ঠিক সেই ভাবে। বরফ গলে যাওয়ার পর ২০ মিনিট মত অপেক্ষা করে ঠাণ্ডা জলে মুখ ধুয়ে নিন। সপ্তাহে একদিন অন্তর একদিন এটি লাগান।

আরও পড়ুন:  লেটুস পাতার সাতটি গুণ

২. শসার আইস ফেস প্যাক

মুখ উজ্জ্বল করতে এর থেকে ভালো আর কিছু নেই। চোখের নীচের কালি দূর করতে সাহায্য করে। স্কিনের মরা চামড়া দূর করে মুখ পরিষ্কার রাখে।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

শসার পেস্ট করে তা আইস’ট্রে তে রেখে জমাতে পারেন বা শসা গোল গোল করে কেটে আইস কিউবে রেখে সামান্য জল দিয়ে তা জমিয়ে নিতে পারেন। আইস কিউব জমে গেলেই এটি ফেস প্যাকের মত করে মুখে লাগানো যাবে। চোখের নিচে ডার্ক সার্কেল থাকলে সেখানে লাগানো যেতে পারে। ফেস প্যাক লাগানোর ৩০ মিনিট পর মুখ ধুয়ে নিলেই হবে। সপ্তাহে তিনদিন ব্যবহার করা যেতে পারে।

৩. অ্যালোভেরা আইস ফেস প্যাক

স্কিন উজ্জ্বল করা, ব্রণ দূর করা, ডার্ক সার্কেল সরানো হাজার একটা সমস্যার সমধান রয়েছে এতে। স্বাভাবিক জেল্লা দ্রুত ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। স্কিন উজ্জ্বল করে ফলে মুখের কালচে ভাব থাকে না। র‍্যাশ থেকে স্কিনকে রক্ষা করে গরমকালে। টোনার হিসেবে কাজ করে মেকাপ সরাতে।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

অ্যালোভেরা জেল ট্রে’তে রেখে ফ্রিজে জমিয়ে আইস কিউব বানিয়ে নিন। মুখে লাগিয়ে ১০ মিনিট ম্যাসাজ করুন। লাগানোর ১৫ মিনিট পর মুখ ধুয়ে নিন। এটি চাইলে রোজ ব্যবহার করতে পারেন। না হলে সপ্তাহে ৩ থেকে ৪ দিন মত ব্যবহার করুন।

৪. টমেটো আইস ফেস প্যাক

সান ট্যান রিমুভ করতে এর মত কার্যকরী উপাদান খুব কম রয়েছে। প্রাকৃতিক ভাবে ফেস ব্লিচিং করতে সাহায্য করে। ত্বকের রুক্ষ শুষ্ক ভাব দূর করে ব্রাইট করে তোলে মুখ।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

টমেটোর পেস্ট করে তা জমিয়ে বানিয়ে নিন আইস কিউব। রোজ স্নানের আগে মুখে লাগান। এত আইস কিউব দিয়েই হালকা ভাবে মুখ ম্যাসাজ করুন। ৩০ মিনিট অপেক্ষা করে মুখ ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। সপ্তাহে দুবার করে লাগালেই কাজে দেবে।

৫. দুধের আইস ফেস প্যাক

দুধে থাকা ল্যাকটিক অ্যাসিড মুখের বলিরেখা দূর করে কার্যকরী। প্রাকৃতিক ভাবে স্কিন ময়েশ্চারাইজ করে এটি সহজেই। ড্রাইনেস দূর করে মুখের লাবণ্য ফিরিয়ে আনে।
ত্বক ফর্সা করতে এর চেয়ে বেস্ট অপসান আর কিছু নেই।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

দুধ ফ্রিজে জমিয়ে আইস কিউব বানিয়ে নিন প্রথমে। এবার মুখে এই আইস কিউব ফেস প্যাক হিসেবে ব্যবহার করুন। ৩০ মিনিট পর মুখ পরিষ্কার করে নিন। সময় থাকলে এটি রোজ একবার করে করা যেতে পারে।

৬. লেবুর আইস ফেস প্যাক

লেবুর আইস ফেস প্যাক গ্লোয়িং স্কিন পেতে এটি সাহায্য করে। সান ট্যান রিমুভ করে। ত্বকের দাগ দূর করে। মুখের সতেজতা বজায় রাখে সবসময়।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

পাতিলেবুর রস আইস ট্রে’তে জমিয়ে ফেস প্যাক বানাতে হবে। মুখ ধুয়ে এটি মুখে লাগাবেন। হালকা ম্যাসাজ করতে করতে। ১৫ মিনিট পর মুখ ধুয়ে নেবেন।
সপ্তাহে একদিন অন্তর একদিন ব্যবহার করবেন।

আরও পড়ুন:  চুল ভাল রাখতে রাতে শোবার আগে যা যা করা জরুরি

৭. হলুদের আইস ফেস প্যাক

হলুদে উপকারিতা অজানা নয়। নানা সমস্যা সমাধানে এটি কাজে দেয়। মুখের উজ্জলতা বাড়ানোর সাথে সাথে কালো দাগ দূর করে। ব্রণর দাগ সরায়।আরও কত কি! হলুদের ভেষজ গুনাগুন স্কিনের নানা রকমের রোগ থেকে আমাদের বাঁচাতে সাহায্য করে।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

কাঁচা হলুদ বেটে তা থেকে রস বের করে নিন প্রথমে। এবার তা আইস ট্রে’তে দিয়ে ফ্রিজে রেখে দিন ৩ ঘণ্টা। জমে আইস কিউব হয়ে গেলে ব্যবহার করুন। মুখে এটি লাগানোর পর কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন মুখ শুকিয়ে এলে ফেস ওয়াস দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। সপ্তাহে ২ বার করে অ্যাপ্লাই করুন ভালো ফল পাবেন।

৮. তরমুজের আইস ফেস প্যাক

ত্বকের সফটনেস ধরে রাখতে কাজ করে তরমুজ। মরা কোষ দূর করে স্কিনকে ভেতর থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। ফ্রেস ও ব্রাইট করে স্কিন। হারানো জেল্লা ফিরিয়ে আনে অনায়াসে।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

তরমুজ কেটে জমিয়ে নিন। স্নান করার আগে মুখে অ্যাপ্লাই করুন। ৩০ মিনিট পর মুখ ধুয়ে নিন। গরমকালে এটি রোজ ব্যবহার করা যেতে পারে সম্ভব হলে।

৯. মুলতানি আইস ফেস প্যাক

ঘরোয়া ফেসিয়াল করতে এটি দারুন কাজে আসে। মুখের ময়লা দূর করে ত্বক উজ্জ্বল করে। ব্রণ হওয়া রোধ করে।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

মুলতানি মাটি জলে গুলে লিকুইট মত বানিয়ে তারপর তা জমাতে হবে ফ্রিজে। এবার অ্যাপ্লাই করতে হবে ফেস প্যাকের মত। মুখ শুকিয়ে এলে পরিষ্কার করে নিতে হবে।
সপ্তাহে ৪ দিন ব্যবহার করা যেতে পারে।

১০. গোলাপজল আইস ফেস প্যাক

টোনার হিসেবে এটি ভালো কাজ করে। মেকাপ তোলার জন্য এটি ব্যবহার করা যেতে পারে।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

গোলাপজল আইস ট্রে’তে জমিয়ে আইস কিউব বানিয়ে রেখে দিন। মেকাপ তোলার সময় আইস কিউব টোনার হিসেবে ব্যবহার করে মেকাপ তুলতে পারেন।

১১. মধুর আইস ফেস প্যাক

ড্রাই স্কিন থেকে স্কিনকে নর্মাল করতে এটি দারুন কাজ করে। মুখের ফ্যাকাসে ভাব দূর করে ত্বক উজ্জ্বল করে তোলে। মধু মুখ নরম ও মোলায়েম রাখে।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

মধু আইস ট্রে’তে জমিয়ে আইস কিউব বানিয়ে নিন। মুখে লাগান ও সাথে সাথে হালকা ম্যাসাজ করুন। লাগানোর ৩০ মিনিট পর মুখ ধুয়ে নিন।
সপ্তাহে তিনদিন এটি ব্যবহার করতে পারেন।

১২. ধনেপাতার আইস ফেস প্যাক

ত্বককে ভেতর ও বাইরে থেকে পরিষ্কার রাখতে এটি কাজ করে দারুন। অসময়ে হওয়া বলিরেখা মুখ থেকে সরাতে সাহায্য করে। মুখের কালো ছোপ দূর করতে কার্যকরী।

কি ভাবে ব্যবহার করবেন

ধনেপাতা বেটে তার থেকে রস বের করে নিন প্রথমে। আইস ট্রে’তে রেখে তা জমিয়ে নিন ফ্রিজে। দিনে দুবার করে ব্যবহার করুন গরমকালে। সপ্তাহে তিনদিন ব্যবহার করলেই ভালো রেজাল্ট পাবেন।

তথ্যসূত্রঃ দুরবাস

বাংলা হেলথ কেয়ার /এসপি