জীবনে ঘটে যাওয়া কোন দুর্ঘটনা আপনাকে বারবার আটকে দিচ্ছে ?

জীবনে ঘটে যাওয়া কোন দুর্ঘটনা আপনাকে বারবার আটকে দিচ্ছে ?
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

জীবনে ঘটে যাওয়া কোন দুর্ঘটনা আপনাকে বারবার আটকে দিচ্ছে ?
ফারজানা আক্তার 
জুলাই ১২, ২০২০

এক লোক বিক্রি করার উদ্দেশ্য তিনটি গাঁধা নিয়ে বাজারে যাচ্ছিলেন। পথের মধ্যে লোকটির খুব পানির তৃষ্ণা পায়। কিছু দূরে লোকটি একটি পুকুর দেখতে পেলো।  তিনি ভাবলেন গাঁধাদের একটি গাছের সাথে বেঁধে তিনি পুকুরে পানি পান করতে যাবেন। একটি গাছের সাথে গাঁধাদের বাঁধতে গিয়ে বাঁধলো বিপত্তি। শুরুতেই প্রথম গাঁধার দড়িটা ছিড়ে গেলো।  তিনি ভাবলেন এখন বাকি গাঁধাদের  বাঁধলেও একটা ছাড়া থাকবে। তিনি কিভাবে পান করতে যাবেন! ভেবে ভেবে তিনি সেখানে দাঁড়িয়ে রইলেন। 

পাশ দিয়ে একজন লোক যাওয়ার সময় তিনি তার কাছে সাহায্য চাইলেন। সেই পথিক তাকে সাহায্য না করে একটি বুদ্ধি দিলেন। পথিক তাকে বললেন বাকি দুই গাঁধাকে এমনভাবে বাঁধেন যেন দড়ি ছেড়া গাঁধা তাদের ঠিকঠাক দেখতে পায়।  বাকি দুই গাঁধাকে বাঁধতে দেখলে সে নিজেকেও তাদের মতো বন্ধি মনে করবে। সে তার জায়গা থেকে নড়বে না। আপনি নিশ্চিন্তে পানি পান করতে পারবেন। 

আরও পড়ুন:  মাত্র কয়েকটা উপাদানে তৈরি করুন কফি কেক

লোকটি পথিকের কথামতো দড়ি ছেড়া গাঁধাকে দেখিয়ে দেখিয়ে বাকি দুই গাঁধাকে বাঁধলেন। তারপর পুকুর থেকে পানি পান করে এসে দেখলেন তিনি যেভাবে তিন গাঁধাকে রেখে গিয়েছেন সেইভাবেই আছে। তিনি খুশি হলেন এবং পথিককে মনে মনে ধন্যবাদ দিলেন।  কিন্তু লোকটির বিপদ এখনো শেষ হয় নি!  তিনি বাকি দুই গাঁধার দড়ি খুলে আগের মতো হাঁটতে শুরু করলেন। কিন্তু সেই দড়ি ছেড়া গাঁধা তার জায়গা থেকে নড়ছে না। তিনি যতবার চেষ্টা করছেন ততবার ব্যর্থ হলেন। উপায় না দেখে তিনি আবার সেখানে দাঁড়িয়ে রইলেন। 

সেই পথিক আবার একই রাস্তায় ফিরছিলেন। লোকটি আকুল হয়ে আবার তার সমস্যার কথা পথিককে জানালো।  পথিক বললো, ‘গাঁধার মাথায় সেট হয়ে আছে তাকে বেঁধে রাখা হয়েছে। যতক্ষন তার মাথায় আবার না ঢুকানো যাবে তাকে খুলে দেওয়া হয়েছে ততক্ষন পর্যন্ত সে এখান থেকে নড়বে না। আপনি এখন আবার দুই গাঁধাকে বাঁধেন। তারপর একে দেখিয়ে দেখিয়ে বাকি দুই গাঁধার বাঁধন খুলে দেন। ‘

লোকটি পথিকের কথামতো কাজ করলো এবং সফল হলো।  আমাদের অনেকের জীবন সেই দড়ি ছেড়া গাঁধার মতো। হাতে পায়ে শিকল না থাকলেও মন নানান ধরণের শিকলে আটকে থাকে। কোন কাজ করতে গেলে আমাদের মনে হয় আমরা পারবো না। আমাদের দ্বারা হবে না। এক পা এগিয়ে চেষ্টা করে দেখবো সেই কাজটুকুও অনেকে করে না। কারণ অদৃশ্য এক শিকলে আমরা বন্ধি থাকি। 

আরও পড়ুন:  অঙ্কিতা ও সুশান্তের বিচ্ছেদের পিছনে দায়ী কে? মুখ খুললেন কঙ্গনার দিদি রঙ্গোলি

আবার, সবার জীবনেই কিছু না কিছু ঘটনা থাকে যা জীবনকে পাল্টে পায়, আর আমরা জীবনকে সেই ঘটনার মধ্যে আটকে দেই। অনেকে সেই ঘটনার মধ্যে নিজের জীবনকে আটকে ফেলে।  সে ওই ঘটনা থেকে বের হতে পারে না, এবং সামনে এগিয়ে যেতেও পারে না। আপনি একবার সেই ঘটনা থেকে বের হয়ে দেখুন, জীবন কল্পনার থেকে সুন্দর হলেও হতে পারে! বের না হলে তো বুঝা যাবে না।  চলার পথে থেমে যাওয়ার মতো অনেক ঘটনা ঘটবে, কিন্তু থেমে যাওয়া যাবে না। চলনশক্তি যেহেতু আপনার হাতে আছে চলতে থাকুন। শেষটা সুন্দর হলেও হতে পারে।

বাংলা হেলথ কেয়ার /এসপি