চুল পড়া বন্ধ করে কালোজিরার তেল, কিন্তু কিভাবে তৈরি করবেন এই তেল? জেনে নিন পদ্ধতি

চুল পড়া বন্ধ করে কালোজিরার তেল, কিন্তু কিভাবে তৈরি করবেন এই তেল? জেনে নিন পদ্ধতি
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

চুল ভেঙে যাচ্ছে? সুন্দর ও ঝলমলে চুলের জন্য নিয়মিত ব্যবহার করতে পারেন কালোজিরার তেল। এটি চুল পড়া রোধ করতেও কার্যকর।
কালোজিরার তেল সামান্য গরম করে চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ভালো করে ম্যাসাজ করুন। ১ ঘণ্টা পর মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সমপরিমাণ অলিভ অয়েল ও কালোজিরার তেল একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় ঘষে ঘষে লাগান। আধা ঘণ্টা পর ভেষজ শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
ক্যাস্টর অয়েলের সঙ্গে কালোজিরার তেল মিশিয়ে চুলে ব্যবহার করুন। ১ ঘণ্টা পর রেগুলার শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
১টি লেবুর রসের সঙ্গে ২ টেবিল চামচ কালোজিরার তেল মিশিয়ে রাতে ঘুমানোর আগে চুলে লাগান। পরদিন শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
আধা কাপ নারকেল তেল, ১ টেবিল চামচ মধু ও ১ টেবিল চামচ কালোজিরার তেল একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত মিশ্রণটি লাগিয়ে গরম তোয়ালে জড়িয়ে নিন মাথায়। ১ ঘণ্টা পর শ্যাম্পুর সাহায্যে ধুয়ে ফেলুন।
কেন ব্যবহার করবেন কালোজিরার তেল?
চুল পড়া বন্ধ করে।চুলের ভেঙে যাওয়া রোধ করে।রুক্ষতা দূর করে চুল ঝলমলে করে।চুলের অকালে পেকে যাওয়া রোধ করে।চুলের গোড়ায় রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। ফলে দ্রুত বাড়ে চুল।
যেভাবে তৈরি করবেন
কালোজিরার দানা গুলোও একটু ভেঙে নেবেন। প্রথমে একটা মেটাল পাত্রে মেথি আর কালোজিরার ভাঙ্গা দানা নিয়ে নিন। এবার এতে ভিটামিন ই তেল, রোজমেরি এসেনসিয়াল অয়েল, জোজোবা অয়েল আর আমন্ড তেল ছাড়া সব তেল মিশিয়ে নিন। কতটুকু তেল তৈরি করবেন তা বুঝে তেল ঢালুন। আমি সব তেল সমান পরিমাণে দেই। কোন কম বেশি করি না। এবার খুব অল্প আঁচে তেলের মিশ্রণটা গরম করুন। ১০-১২ মিনিট পরে পাত্রে কারি পাতা অ্যাড করুন। এরপর আবার অল্প আঁচে তেল গরম করতে থাকুন।
খেয়াল রাখুন, যখন তেল ফেনা তুলবে তখনি চুলা থেকে তেল নামিয়ে নিন। বেশিক্ষণ রাখলে বা চুলার আঁচ বেশি হলে সব উপকরণ পুড়ে গিয়ে তেল নষ্ট হয়ে যাবে। তেল চুলা থেকে নিচে নামিয়ে পুরো ঠাণ্ডা করে নিন। এরপর একদম ঠাণ্ডা তেলে একে একে ভিটামিন ই তেল, জোজোবা অয়েল আর আমন্ড তেল আগের পরিমাণে মিশিয়ে নিন। এরপর রোজমেরি এসেনসিয়াল অয়েল দিন, খুবি অল্প পরিমাণে বাকি সব তেলের পরিমাণের তিন ভাগের একভাগ হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।
মনে রাখবেন, তেল গরম থাকলে কিন্তু এসব তেলের গুণাগুন নষ্ট হয়ে যাবে। এবার তেলটা না ছেঁকে সব কিছু সহ একটা কাঁচের বোতলে বা বয়ামে ভরে সংরক্ষণ করুন। এই তেলটা ৬ মাস পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু মনে করে প্রতি মাসে একটু কড়া রোদে দিতে হবে। একবারে অনেকখানি করে বানাবেন না। যতটুকু শেষ করতে পারবেন ততটাই একবারে বানান।
৫০০০+ মজদার রেসিপির জন্য Google Play store থেকে Install করুন “Bangla Recipes” মোবাইল app…. 🙂.মোবাইল app Download Link >>> https://bit.ly/2YsK4MO

আরও পড়ুন:  নারী-পুরুষের জামার বোতাম ডান-বামে কেন থাকে? রহস্য জেনে নিন

Loading…

বাংলা হেলথ কেয়ার /এসপি