চুল পরা রোধে মাত্র ১ মাস ব্যাবহার করুন সম্পূর্ণ নতুন এই হেয়ার মাস্ক

চুল পরা রোধে মাত্র ১ মাস ব্যাবহার করুন সম্পূর্ণ নতুন এই হেয়ার মাস্ক
পড়া যাবে: 3 মিনিটে

খুব কমন একটি সমস্যা হোল এই চউল পরা।  চুল পড়ার সমস্যার যারা জেরবার হয়ে যাচ্ছেন, আজকের আর্টিকেল তাঁদের জন্য। আপনারা অনেকেই চুল পড়া সমস্যার থেকে বাঁচতে হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করেন। আর হেয়ার মাস্কের মধ্যেই আগে আসে হেনা, তার সঙ্গে ডিম, দই, কলা এই সব উপকরণ। কিন্তু এই উপকরণের বাইরেও চুলের জন্য আরও ভালো কিছু উপকরণ আছে, যেগুলির প্যাক আপনার মাথায় একরাশ চুল এনে দেবে। জানবেন নাকি কি সেই উপাদান?

১. গ্রিন টি হেয়ার মাস্কঃ গ্রিন টি’র মধ্যে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট চুলের জন্য খুবই ভালো। এটি চুলের বৃদ্ধিতে খুব সাহায্য করে।

উপকরণঃ

এক টেবিল চামচ ভেজানো গ্রিন টি
একটি ডিমের কুসুম

পদ্ধতিঃ খুব ভালো হয় যদি আগের দিন রাতে জলে গ্রিন টি ভিজিয়ে রাখেন। গরম জলেই ভেজাতে হবে তার কোনও মানে নেই। পরের দিন জল থেকে গ্রিন টি’র পাতা তুলে নিন। এর মধ্যে ডিমের কুসুম দিয়ে ভালো করে মেশান। একটি স্মুদ পেস্ট হয়ে গেলে সেটি চুলে, স্ক্যাল্পে লাগিয়ে অপেক্ষা করুন ২৫ মিনিট মতো। এবার ঠাণ্ডা জল দিয়ে চুল ধুয়ে মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে শ্যাম্পু করে নিন। সপ্তাহে দু’ দিন করতেই পারেন। এতে চুল পড়া অনেক কমে যাবে।

২. ভিটামিন ই ক্যাপসুল হেয়ার প্যাকঃ ভিটামিন ই-তে থাকে টোকোফেরল নামের এক উপাদান, যা চুল পড়া থেকে রক্ষা করতে দারুণ কাজ দেয়। আর ভিটামিন ই’র অ্যান্টি ফাঙ্গাল উপাদান স্ক্যাল্পের স্বাস্থ্য ভালো রাখে।

উপকরণঃ দুটো ভিটামিন ই ক্যাপসুল, এক চামচ নারকেল তেল, এক চামচ আমন্ড তেল, এক চামচ ক্যাস্টর তেল।

আরও পড়ুন:  চুলের যত্নে আদার রসের ৪ উপকারিতা

পদ্ধতিঃ এটি আগের দিন রাতে করলে ভালো হয়। আগে একটি পাত্রে তেলগুলি নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার ওই মিশ্রণে দিন ভিটামিন ই ক্যাপসুল ভেঙে তার ভিতরের তেল। আবার ভালো করে মেশান। এই মিশ্রণ এবার চুলে আর স্ক্যাল্পে লাগিয়ে, মাথায় শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে সারারাত রেখে দিন। পরের দিন সকালে শ্যাম্পু করে নিলেই বুঝবেন চুল কত ভালো লাগছে। এটা সপ্তাহে এক দিন করুন দুই মাস। চুল পড়ার সমস্যায় কত ভালো আছেন নিজেই বুঝতে পারবেন। চুলের জন্য উপকারী সব তেল এর মধ্যে আছে। এই মিশ্রণ তাই চুলের গোঁড়া মজবুত করে।

৩. দারচিনির প্যাকঃ চুলের জন্য দারচিনি সম্ভবত ব্যবহার করেননি। অনেকে রঙের জন্য করতে পারেন, কিন্তু চুল পড়া থামাতে? না। কিন্তু দারচিনিও চুল পড়া কমিয়ে চুলের গোছ মোটা করতে সাহায্য করে।

উপকরণঃ

দারচিনি গুঁড়ো, মধু
তিন চামচ দারচিনি গুঁড়ো
এক চামচ মধু

পদ্ধতিঃ আগে কিছু দারচিনি নিয়ে মিক্সিতে ভালো করে গুঁড়ো করে নিন। এবার তিন চামচ সেই দারচিনি গুঁড়ো আর মধু ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণ চুলে লাগিয়ে রেখে দিন যতক্ষণ না শুকিয়ে যাচ্ছে। স্ক্যাল্পে এই মিশ্রণ না লাগানোই ভালো, শুধু চুলে লাগান। শুকিয়ে গেলে ভালো করে চুল পরিষ্কার করে নিন আর শ্যাম্পু করে ফেলুন। সপ্তাহে এক বার করেই করুন। দেখবেন চুল পড়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে একটা শাইন আসছে চুলে।

৪. লেবু আর হুইট জার্ম অয়েলের প্যাকঃ লেবু স্ক্যাল্প পরিষ্কার করে খুব সুন্দর ভাবে। স্ক্যাল্পে যে ময়লা জমে আছে, লেবু সহজেই তা তুলে দেয়। আর হুইট জার্ম চুলের ময়েশ্চার ধরে রাখে। ফলে চুল ভঙ্গুর হয়ে যায় না। তাই সহজেই আর চুল পড়তে পারে না।

আরও পড়ুন:  স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য রক্ষায় ত্রিফলা

উপকরণঃ

হাফ কাপ লেবুর রস
১ চামচ হুইট জার্ম তেল

পদ্ধতিঃ লেবুর রস আর হুইট জার্ম তেল ভালো করে মেশান। এই মিশ্রণ চুলের গোঁড়ায় ভালো করে দিন। সারা চুলেও দিন ভালো করে। তারপর শুকিয়ে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করুন। মোটামুটি ৩০ মিনিট মতো লাগবে। এরপর ভালো শ্যাম্পু দিয়ে শ্যাম্পু করে নিন। সপ্তাহে তিন দিন করে করলে এক মাস পর থেকেই ফল পেতে শুরু করবেন।

৫. আমলার হেয়ার মাস্কঃ আমলা নিয়ে নতুন করে তো বলার কিছু নেই। চুলের জন্য যদি এক নম্বরে কোনও জিনিসকে রাখতে হয় সেটা হল এই আমলা। আমলা কিন্তু চুলের ভলিউম বাড়ায় খুব সুন্দর।

উপকরণঃ

দুই চামচ জল
খানিক ফ্রুট সল্ট

দুটো আমলার পেস্ট
একটা ডিমের সাদা অংশ

পদ্ধতিঃ আগে দুটো আমলা ভালো করে পিষে নিন। একটা পেস্ট মতো হয়ে যাবে। এর মধ্যে এবার ডিমের সাদা অংশ, ফ্রুট সল্ট, আর খানিক জল নিয়ে স্মুদ পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্ট চুলে আর স্ক্যাল্পে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। একটি ভালো শ্যাম্পু দিয়ে এবার শ্যাম্পু করে নিন। সপ্তাহে দু’ দিন করলে ভালো ফল পাবেন।

আমলা ছাড়া বাকি সব উপকরণই কিন্তু চুলের জন্য একটু নতুন। এগুলির মাস্ক একটু ব্যবহার করে দেখুন। চুল পড়া কিন্তু সত্যিই অনেক কমে যাবে।

তথ্যসূত্রঃ দুরবাস

বাংলা হেলথ কেয়ার /এসপি