একজন পারফেক্ট গৃহিণীর দৈনন্দিন রুটিন কেমন হওয়া উচিত? জেনে নিন সাজেশন

একজন পারফেক্ট গৃহিণীর দৈনন্দিন রুটিন কেমন হওয়া উচিত? জেনে নিন সাজেশন
পড়া যাবে: 2 মিনিটে

আপনি কি হাউজ ওয়াইফ (housewife)? বাড়ির দায়িত্ব আপনার? অর্থাৎ বাড়ির প্রত্যেকটি সদস্য আপনার উপর নির্ভরশীল। নিশ্চয়ই আপনার কাজের নির্দিষ্ট রুটিন (routine) রয়েছে। সেটাই স্বাভাবিক। আমরা হাউজওয়াইফদের একটা সাধারণ রুটিন নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করলাম। বিভিন্ন গৃহবধূরা নিজেদের রুটিনের কথা শেয়ার করেছেন। তার উপর ভিত্তি করেই একটি সাধারণ আইডিয়া দেওয়ার চেষ্টা করলাম আমরা। কিন্তু প্রত্যেকের জীবন আলাদা। চাহিদা আলাদা। তাই আপনার বাড়ি কীভাবে সুন্দর করে রাখবেন, সেটা একান্তই আপনার উপর। তাই আপনার রুটিন অন্য কারও সঙ্গে মিলবে না, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু একটু প্ল্যান করে কাজ করলে হয়তো অনেক সুন্দর ভাবে যে কোনও কাজ করা সম্ভব। তাই না? এই গাইডলাইন আপনার সাজেশন হিসেবে কাজ করতে পারে।
হাউজ ওয়াইফদের দৈনন্দিন রুটিনের সাজেশন

সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠে পড়ুন। তাহলে গোটা দিনটা হাতে পাবেন। সকাল ছ’টায় উঠবেন, নাকি সাতটায় বা আরও আগে বা পরে তা নির্ভর করবে আপনার কাজের ধরনের উপর।
ঘরের নির্দিষ্ট কাজ সেরে নেওয়ার পর ব্রেকফাস্ট তৈরি করার পালা। নিজের জন্যও তৈরি করতে ভুলবেন না। কারণ আপনি নিজে ভাল থাকলে, তবেই বাড়ির বাকি সদস্যদের ভাল রাখতে পারবেন।
এরপরই সন্তানদের স্কুলের জন্য তৈরি করা বা স্কুলে পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব সাধারণত হোম মেকার মায়েদেরই থাকে। সন্তানকে স্কুলে পৌঁছে দিয়ে ফেরার পথে প্রয়োজন মতো সাংসারিক জিনিস কিনে নিতে পারেন।
বাড়ি ফিরে লাঞ্চ রেডি করে নিন। প্রয়োজনে এগিয়ে রাখুন ডিনারের প্রিপারেশনও।
স্নান করে লাঞ্চ করে নেওয়ার পর বেশ কিছুটা সময় আপনার নিজের। নিজেকে প্যাম্পার করুন।
আপনার পছন্দের কিছু কাজে দুপুরটা কাটাতে পারেন। ধরুন, গল্পের বই পড়লেন। গান শুনলেন। অথবা সন্তানের স্কুলের কোনও কাজ দেখে রাখলেন। আবার ঘুমিয়েও কাটাতে পারেন সময়টা। আবার পার্লারে গিয়ে রূপচর্চা করে নিজেকে প্যাম্পার করতে পারেন।
বিকেলে সাধারণত সন্তানদের স্কুল থেকে ফিরে আসার সময়। এ সময় তাদেরকে পড়াশোনায় সাহায্য করতে পারেন। তাদের সময় দিন। অথবা ধরুন, গান শেখা, নাচ শেখানো বা সুইমিং আপনার নেশা, সে সব শখ পূরণের জন্যও বরাদ্দ রাখতে পারেন কিছুটা সময়।
সন্ধের পর ডিনার তৈরি করে নিন। বাড়ির সকলকে নিয়ে একসঙ্গে ডিনার টেবিলে বসার চেষ্টা করবেন।
বাড়িতে যদি বয়স্ক কেউ থাকেন, এই রুটিনের মধ্যেই তাঁকেও সময় দিন। তাঁর যত্নের ভারও আপনার উপর।
আপনার উপর বাড়ির দায়িত্ব। তাই আপনার ভাল থাকাটা সবার থেকে বেশি প্রয়োজন। নিজে ভাল না থাকলে কাউকে ভাল রাখা সম্ভব নয়। বাড়ির দায়িত্ব সামলাতে গিয়ে নিজেকে ভুলে যাবেন না প্লিজ। নিজের পছন্দগুলোও বেঁচে থাকুক দৈনন্দিনে।
৫০০০+ মজদার রেসিপির জন্য Google Play store থেকে Install করুন “Bangla Recipes” মোবাইল app…. 🙂.মোবাইল app Download Link >>> https://bit.ly/2YsK4MO

আরও পড়ুন:  সহ্য করতে পারতেন না স্বামীকে, প্রিয়াঙ্কাকেও পছন্দ নয় নিকের পরিবারের

Loading…

বাংলা হেলথ কেয়ার /এসপি